preloder
বিবিধ বিষয়

তর্ক এড়িয়ে চলুন

‘মেড়ার শিঙ্গে হীরা ভাঙ্গে, মানীর অপমান।’
অসম্মানী নীচ লোক কর্তৃক সম্মানীলোকের অপমান হলে এ কথা বলা হয়। এই জন্য জ্ঞানীর উদ্দেশ্যে বলা হয়, ‘মূর্খের সঙ্গে তর্ক করো না। নচেৎ তোমার মান-সম্মান ধূলিসাৎ হবে।’
সম্মানীর উদ্দেশ্যে বলা হয়, ‘হীন লোকেদের সাথে বিতর্কে জড়াবে না, নচেৎ তুমি অপমানিত হবে।’
আরো বলা হয়, ‘মূর্খের সাথে তর্কযুদ্ধ বা বাকযুদ্ধ করার মানেই হল পাথরের উপর হাত দ্বারা আঘাত করা। হাতই ক্ষত-বিক্ষত হবে, পাথরের কী হবে? কারণ, তা তো নির্জীব।’
‘বচনবাগিশ আর মূর্খের সাথে খবরদার তর্ক করো না। কারণ, প্রথমোক্তের কাছে তুমি পরাজিত হবে এবং দ্বিতীয়োক্তের কাছে হবে অপমানিত।’
‘জ্ঞানী যদি মূর্খের মোকাবিলায় পড়ে তবে তার নিকট থেকে সম্মানের আশা করা ঠিক নয়। আর কোন মূর্খ যদি জ্ঞানী লোকের মোকাবিলায় জিতে যায়, তবে আশ্চর্যের কিছু নয়। কারণ, পাথরের আঘাতে মতির বিনাশ সহজেই হয়ে থাকে।’ (সা’দী)
‘একটি মূল্যহীন পাথর যদি সোনার বাটি ভেঙ্গে ফেলে, তাহলে তাতে পাথরের কোন প্রকার মূল্য বৃদ্ধি হয় না এবং সোনারও কোন প্রকার মূল্য হ্রাস হয় না।’ (সা’দী)
‘মূর্খদের মজলিসে কোন জ্ঞানী ব্যক্তির কথা না চললে তাতে অবাক হওয়ার কিছু নয়। কারণ, ঢাকের শব্দের কাছে তবলার শব্দ বিলীন হওয়া এবং রসুনের দুর্গন্ধের কাছে ধূপের সুগন্ধ বিলুপ্ত হওয়াটাই স্বাভাবিক।’ (সা’দী)
‘একজন মূর্খ কোন জ্ঞানী ব্যক্তিকে তর্কে হারিয়ে দিলে সে আস্ফালন করতে থাকে। কিন্তু তার এ কথা জানা নেই যে, ঢাকের ঢপঢপে শব্দের মাঝে মোহন বাঁশীর সুর বিলীন হয়ে যায়।’ (সা’দী)
‘কোন ধৈর্যশীল বা আহমকের সাথে তর্ক করো না। কারণ, ধৈর্যশীল তোমাকে পরাজিত করবে এবং আহমক তোমাকে ক্লিষ্ট করবে।’
‘আহমকের সঙ্গে তর্ক করো না, কারণ লোকে তোমাদের মাঝে পার্থক্য নির্ণয় করতে ভুল করতে পারে।’ তার মানে তুমিও আহমক বিবেচিত হতে পার।
আর এই জন্যেই ‘তর্কে জেতা বুদ্ধিমানের কাজ নয়, তর্কে না জড়ানো বুদ্ধিমানের কাজ।’
মূর্খদেরকে এড়িয়ে চলতে আদেশ দিয়ে আমাদের কুরআন বলে,
{وَعِبَادُ الرَّحْمَنِ الَّذِينَ يَمْشُونَ عَلَى الْأَرْضِ هَوْنًا وَإِذَا خَاطَبَهُمُ الْجَاهِلُونَ قَالُوا سَلَامًا} (63) سورة الفرقان
“তারাই পরম দয়াময়ের দাস, যারা পৃথিবীতে নম্রভাবে চলাফেরা করে এবং তাদেরকে যখন অজ্ঞ ব্যক্তিরা সম্বোধন করে, তখন তারা বলে, ‘সালাম’।” (ফুরক্বানঃ ৬৩)
{خُذِ الْعَفْوَ وَأْمُرْ بِالْعُرْفِ وَأَعْرِضْ عَنِ الْجَاهِلِينَ} (199) سورة الأعراف
“তুমি ক্ষমাশীলতার নীতি অবলম্বন কর, সৎকাজের নির্দেশ দাও এবং মূর্খদেরকে এড়িয়ে চল।” (আ’রাফঃ ১৯৯)
আর তর্ক এড়িয়ে চলতে অনুপ্রাণিত ক’রে আমাদের মহানবী ﷺ বলেছেন,
أَنَا زَعِيمٌ بِبَيْتٍ فِى رَبَضِ الْجَنَّةِ لِمَنْ تَرَكَ الْمِرَاءَ وَإِنْ كَانَ مُحِقًّا.
“আমি জান্নাতের পার্শ্বে এক গৃহের জামিন সেই ব্যক্তির জন্য যে সত্যাশ্রয়ী হওয়া সত্ত্বেও তর্ক বর্জন করে।” (আবু দাঊদ ৪৮০২, ত্বাবারানী ৭৩৬১নং)


আব্দুল হামীদ আল-ফাইযী আল-মাদানী
(‘মানবের উপমান অমানব’ বই থেকে)

#SotterDikeAhobban

Tags

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close